কথা বলতে বলতে জমশেদ মাঝেমধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের দিকে ঘাড় ফিরিয়ে উঁকিঝুঁকিও দেন। কী দেখেন ঘাড় ঘুরিয়ে, প্রশ্ন রাখতেই বলেন, ‘দেখি, চিয়ারম্যান সাব আইয়া ত্রাণ দেয়নি! যদি কুনতা পাই!’

কথায় কথায় জানা গেল জমশেদের বাড়ি সদর উপজেলার আলীনগর গ্রামে। তবে ১০ থেকে ১৫ বছর ধরে ঘোপাল গ্রামে থাকেন। স্ত্রী, তিন ছেলে ও দুই মেয়েকে নিয়ে সংসার। টাকার অভাবে সন্তানদের লেখাপড়া করাতে পারছেন না। জমশেদ বলেন, ‘ঘরে চাল-ডাল নাই। একটা ত্রাণের প্যাকেট পাইলে ভালো হইত। তিন ঘণ্টা দাঁড়াইয়া পায়ে ঝিমঝিম করে। আফসোস, এক ছটাক চালও পাইলাম না।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন