বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিউটি জানান, তিনি আদালত থেকে রায় পেয়েছেন। কিন্তু তাঁর স্বামী তাঁকে এখনো স্বীকৃতি দেননি। শুনেছেন স্বামী এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেছেন। আপিলের মাধ্যমে তাঁকে দীর্ঘদিন আইনের দরজায় ঘুরতে হবে। যেটা তাঁর জীবনকে বিপর্যস্ত করে ফেলবে।

বিউটি আরও জানান, ছোট বয়সে তাঁর বিয়ে হয়েছিল। সেই পক্ষে তাঁর দুটি সন্তান রয়েছে। এরপর স্বামীর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ ঘটে। তিনি বাবার বাড়িতেই থাকতেন। এ সময় তাঁদের বাড়িতে আসা-যাওয়া করতেন রছুল আমিন। একপর্যায়ে তাঁদের মধ্যে সম্পর্ক হয়। তখন তাঁরা গোপনে বিয়ে করে স্বামী-স্ত্রীর মতো থাকতে থাকেন। মাঝেমধ্যেই তিনি স্বামীকে তাঁর বাড়িতে নিয়ে যেতে বলতেন। পরিবারের সদস্যরাও চাপ সৃষ্টি করেন। কিন্তু রছুল আমিন তাঁকে নিয়ে যাবেন বলে ঘুরাতে থাকেন। এমনকি বাবার বাড়িতে রাখা অবস্থায় তাঁর কাছে ৮০ হাজার টাকা যৌতুক দাবি করেন। এভাবে কিছুদিন যাওয়ার পর তাঁর সঙ্গে রছুল আমিন যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। এর পর থেকে তিনি স্বামীর স্বীকৃতি পেতে লড়াই করছেন।

বিউটি বেগম জানান, অবশেষে ২০০৭ সালের ৮ এপ্রিল তিনি ঝিনাইদহ পারিবারিক আদালতে মামলা করেন। যে মামলা চালিয়েছেন দীর্ঘ ১৪ বছর। এই ১৪ বছরে তাঁকে অন্তত ২০০ দিন আদালতে যেতে হয়েছে। এ সময় তাঁর প্রায় তিন লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে। মামলা চলাকালে নিজে বাঁচার জন্য ঢাকায় পোশাক কারখানায় কাজ করতে চলে যান। সেখানে ছয় বছর কাজ করেন। এভাবে কষ্ট করে তিনি দুই সন্তানকে বড় করেছেন ও মামলার খরচ চালিয়েছেন। মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন, ছেলে ইয়াসিন আরাফাত (১৯) পড়ালেখা করছেন। স্বামীর স্বীকৃতির জন্য তিনি লড়াই করে গেছেন, আদালত রায় দিয়েছেন। কিন্তু স্বামী-সংসার কোনোটাই এখনো পাননি। এমনকি ভরণপোষণের টাকাও তাঁকে দেওয়া হয়নি। ফলে তাঁকে এখনো ভাইয়ের বাড়িতে থেকে সেলাইয়ের কাজ করে জীবন চালাতে হচ্ছে।

বিউটি বেগমের ভাই তারিফ মিনে জানান, বোনের এই অবস্থা দেখে তাঁদের কষ্ট হয়। তাঁরা অসচ্ছল পরিবার। ফলে কষ্ট করেই বোন লড়ে যাচ্ছে। মা আয়েশা বেগম জানান, মেয়ের বিচার বাবা দেখে যেতে পারেননি। তিনি রায়ের খবর পেয়েছেন।

অভিযুক্ত রছুল আমিন জানান, বিউটির সঙ্গে তাঁর ছোট বেলায় প্রেম ছিল। পরে দুজনের পৃথক স্থানে বিয়ে হয়। এরপর মেয়েটির স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হলে তিনি (মেয়েটি) তাঁকে বিয়ে করতে বলেন। তিনি সেটা করেননি। যে বিয়ের কাবিন আদালতে দেওয়া হয়েছে, সেটা ঠিক নয়। তিনি এ রায়ের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে উচ্চ আদালতে আপিল করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন