বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রংপুর জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে আজ পর্যন্ত এক সপ্তাহে রংপুর জেলায় সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ৫৯। গত এক মাস আগেও জেলায় এক দিনে শতাধিক রোগী শনাক্তের ঘটনা ঘটেছিল। এখন যাঁরা নতুন করে সংক্রমিত হচ্ছেন, তাঁরা কম ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছেন বলে বাড়িতেই আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে চিকিৎসা নিয়েছেন নগরের সাগরপাড়া এলাকার বাসিন্দা মাসুদ খান। তিনি বলেন, ‘করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাড়িতেই ছিলাম। জ্বর,সর্দি–কাশি ছিল। হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার প্রয়োজন মনে করিনি। এখন সুস্থ।’

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টার মাহমুদ হোসেন বলেন, কয়েক দিন আগেও দিন-রাতে করোনা রোগীদের সেবায় অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে দৌড়াদৌড়ি করতে হয়েছে। এখন করতে হচ্ছে না।

নাসরিন আক্তার নামের এক নার্স বলেন, ‘করোনো রোগীদের সেবা দিতে কী যে কষ্ট গেছে। খাওয়া–দাওয়ারও ঠিক ছিল না। এরপর নিজের করোনায় আক্রান্ত হওয়া নিয়ে অনেক বেশি ভয় ছিল। তবে এখনো যে ভয় নেই তা নয়।’

আজ দুপুরে রংপুর মেডিকেলে সরেজমিন দেখা যায়, সাধারণ রোগী ও স্বজনদের মধ্যেও করোনার শঙ্কা অনেকটা কমে গেলেও সবার মুখে মাস্ক। স্বাস্থ্যবিধিও মেনে চলতে দেখা যায় সবাইকে।

রংপুর জেলা প্রশাসক ও করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আসিব আহসান বলেছেন, করোনার সংক্রমণ কমে গেলেও সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। জনসচেতনতার কাজ অব্যাহত রাখতে হবে। চিকিৎসক–নার্সরা সব সময় কাজ করেছেন। তা এখনো অব্যাহত আছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন