নিহত পারভীনের বড় বোন রিজিয়া বেগম জানান, চার মাস আগে থেকে পারভীন মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েন। ছয় দিন আগে একটি কন্যাশিশুর জন্ম দিয়েছেন তিনি। রোববার ভোররাতে সাহ্‌রি শেষে সবাই গল্প করছিলেন। এ সময় সবার চোখ ফাঁকি দিয়ে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে পড়েন পারভীন। অনেক খোঁজাখুঁজির পর সকাল সাড়ে আটটার দিকে উত্তর তালবাড়িয়া এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম রেললাইনে তাঁর লাশ পাওয়া যায়।

চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন থানা-পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. নাজিম উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, মিরসরাই উপজেলার উত্তর তালবাড়িয়া এলাকায় রেললাইনে কাটা পড়ে মানসিক ভারসাম্যহীন এক নারীর মৃত্যুর বিষয়টি জেনেছেন তাঁরা। খবর পেয়ে লাশটি উদ্ধার করেছে পুলিশ। ময়নাতদন্তের পর লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন