পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলার নলবাইদ সোনালীবন্দ গ্রামের কৃষক মো. শাহজাহান ৭০ হাজার টাকার বিনিময়ে স্থানীয় মো. গাজী মিয়ার কাছ থেকে ২৪ শতাংশ জমি বর্গা নিয়ে চাষ করছিলেন। ইতিমধ্যে ওই জমিতে তিনি আমনের বীজতলা করার প্রস্তুতি নেন। কিন্তু আজ সকালে গাজী মিয়ার আত্মীয় পরিচয় দেওয়া মামুন ও মোস্তাক নামের দুই ব্যক্তি শাহজাহানের বর্গা নেওয়া জমিটি তাঁদের বলে দাবি করেন এবং ওই জমিতে হালচাষের চেষ্টা করেন। এ সময় কৃষক শাহজাহান, তাঁর ছেলে কাজল ও চাচাতো ভাই ইমান আলী তাঁদের বাধা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মামুন ও মোস্তাক কয়েকজন সহযোগীকে সঙ্গে নিয়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তাঁদের ওপর হামলা চালান। হামলায় শাহজাহান জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। ঘটনার পরপরই হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে আত্মীয়স্বজন ও স্থানীয় লোকজন তাঁদের উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে শাহজাহানের মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে সদর থানা-পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন ও নিহত শাহজাহানের লাশ উদ্ধার করেন।

টাকা দিয়ে গাজী মিয়ার কাছ থেকে ওই কৃষকের জমি বর্গা নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চরমোচারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) এস এম সাব্বির আহমেদ। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ওই কৃষক জমি বর্গা নিয়ে ওই জমি চাষ করছিলেন। কিন্তু গাজী মিয়ার সঙ্গে আত্মীয় হানিফ মিয়ার ওই জমি নিয়ে বিরোধ আছে। সেই বিরোধের জেরে হানিফ মিয়ার ছেলে মামুন ও মোস্তাক ওই কৃষকের ওপর হামলা করেছেন বলে তিনি শুনেছেন।

সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. শফিকুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, নিহত ব্যক্তির লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় আইনগত বিষয় প্রক্রিয়াধীন। পুলিশ ঘটনাটি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত ও জড়িত ব্যক্তিদের আটক করার চেষ্টা করছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন