স্পিডবোট ডুবে মারা যাওয়া ওই দুই পরীক্ষার্থী হলেন রিটন চাকমা (২০) ও এমোলিনা চাকমা (২১)। এর মধ্যে রিটন চাকমার বাড়ি বিলাইছড়ি উপজেলার কেঙ্গরাছড়ি ও এমোলিনা চাকমার বাড়ি বরকল উপজেলার সুবলং এলাকায়।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাত তিনটার দিকে রিটন চাকমা ও আজ ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে এমোলিনা চাকমার লাশ কাট্টলী বিলে ভাসমান অবস্থায় দেখতে পান স্থানীয় লোকজন। পরে পুলিশকে খবর দেওয়া হলে দুজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এর আগে গত শুক্রবার বিকেল সাড়ে পাঁচটা থেকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা তাঁদের উদ্ধারকাজ করছিলেন। ঘটনাস্থল থেকে ২০০ গজ দূরে তাঁদের লাশ ভাসছিল বলে স্থানীয় জেলেরা জানিয়েছেন।

গত শুক্রবার বাঘাইছড়ি উপজেলার শিজক কলেজ কেন্দ্রে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন বিএ পরীক্ষা দিয়ে স্পিডবোটে রাঙামাটিতে ফিরছিলেন ওই দুই শিক্ষার্থী। বেলা তিনটার দিকে কাপ্তাই হ্রদের কাট্টলী বিলে পৌঁছালে বালুভর্তি ইঞ্জিনচালিত নৌকার সঙ্গে তাঁদের স্পিডবোটের সংঘর্ষ হয়। এতে স্পিডবোটটি ডুবে গেলে তাঁরা নিখোঁজ হন।
লংগদু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনি দে প্রথম আলোকে বলে, স্পিডবোটডুবিতে নিখোঁজ দুই পরীক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।