আড়পাড়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. সাদিকুর রহমান (মোটরসাইকেল) ২ হাজার ৭৬২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র আরেক প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. বদরুজ্জামান বাবু (ঘোড়া) পেয়েছেন ২ হাজার ২৬৭ ভোট। এ ইউনিয়নের মোট নয়জন প্রার্থীর মধ্যে আওয়ামী লীগ–মনোনীত প্রার্থী মো. আরমান হোসেন সপ্তম হয়েছেন। তিনি মাত্র ২২১টি ভোট পেয়ে জামানত হারাচ্ছেন। তিনি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক।

নির্বাচনী আইন অনুযায়ী, ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় প্রত্যেক প্রার্থীকে সরকারি কোষাগারে পাঁচ হাজার টাকা করে জামানত দিতে হয়। সেই জামানতের টাকা ফেরত পেতে ওই ইউনিয়নের ভোটকেন্দ্রগুলোয় মোট প্রদত্ত ভোটের ৮ ভাগের ১ ভাগ পেতে হয়। যেসব প্রার্থী এই পরিমাণ ভোট পাবেন না, তাঁদের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়ে যাবে।

ডুমাইন ইউনিয়নে মোট দুজন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। সেখানে আনারস প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য শাহ্ আসাদুজ্জামান ৩ হাজার ৮৫১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ–মনোনীত প্রার্থী বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান মো. খুরশিদ আলম (নৌকা) পেয়েছেন পেয়েছেন ৩ হাজার ২৩৬ ভোট।

মেঘচামী ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সদস্য মো. সাবিরউদ্দিন শেখ (চশমা)। তিনি পেয়েছেন ৪ হাজার ৪৭৪ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ–মনোনীত প্রার্থী হাসান আলী খান (নৌকা) পেয়েছেন ২ হাজার ৬২৮ ভোট।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন