মীর মোহাম্মদ নাসিরউদ্দিন বলেন, ‘যতক্ষণ এই সরকার পদত্যাগ না করবে, ততক্ষণ বিএনপির নেতা-কর্মীরা রাজপথ দখল করে রাখবে। দেশের যে করুণ অবস্থা, তাতে আওয়ামী লীগ সরকারের ক্ষমতায় থাকার কোনো নৈতিক অধিকার নেই। এ জন্য আমরা সবাই রাজপথে নেমে ঐক্যবদ্ধভাবে তাদের বিদায় করব।’

বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, বর্তমান সরকার টাকা লুট করে বিদেশে পাঠানোর কারণে আমাদের এই দুর্ভোগ। এই সরকারকে বিতাড়িত করতে হবে। এ জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে নামতে হবে। তিনি মাদারীপুর জেলা বিএনপির নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানান।

‘বর্তমান সরকার জনগণের সরকার নয়’ উল্লেখ করে মীর মোহাম্মদ নাসিরউদ্দিন বলেন, ‘ভোলায় পুলিশ বাহিনী দিয়ে গুলি করে আমাদের এক নিরীহ কর্মীকে হত্যা করা হয়েছে। এ সরকার কখনোই জনগণের সরকার হতে পারেনি, এ সরকার পুলিশ বাহিনীর সরকার। তারা বিএনপিকে দমন করার জন্য পুলিশ বাহিনীকে লেলিয়ে দিচ্ছে। এ সন্ত্রাসী সরকার উৎখাতের জন্য বিএনপি কঠিন আন্দোলনে যাবে।’

মীর মোহাম্মদ নাসিরউদ্দিন বলেন, ‘সারা দেশে দিনে-রাতে লোডশেডিং। দ্রব্যমূল্যের দামে ঊর্ধ্বগতি। সবকিছুর পেছনে সরকারের লাগামহীন দুর্নীতি। এ কারণে দেশ প্রায় অচল হয়ে পড়েছে। অচল দেশকে সচল করতে হলে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে অংশ নিতে হবে। বিএনপিতে কোনো গ্রুপিং থাকবে না। এ জন্য আগামী ১৫ দিনের মধ্যে জেলা বিএনপির নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে।’

বিক্ষোভ সমাবেশে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে সমাবেশে যোগ দেন বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। তাঁরা ডিসিব্রিজ এলাকায় জড়ো হন। এ সময় নেতা-কর্মীরা সারা দেশে লোডশেডিং ও জ্বালানি খাতে অব্যবস্থাপনার প্রতিবাদ জানান। সমাবেশে মাদারীপুর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক জামিনুর হোসেনের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সহসাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার মাশুকুর রহমান, জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য কাজী হুমায়ুন কবির প্রমুখ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন