নিহত জনির পরিবার সূত্রে জানা যায়, গতকাল শনিবার দুপুরে অটোরিকশা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন জনি। সাধারণত রাত ১০টার মধ্যে গ্যারেজে অটোরিকশা জমা দিয়ে বাড়িতে ফেরেন তিনি। কিন্তু গতকাল রাতে আর বাড়িতে ফেরেননি। রাতে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাঁর সন্ধান মেলেনি। আজ রোববার সকালে ফেসবুকে লাশের ছবি দেখে ঘটনাস্থলে গিয়ে জনির লাশ শনাক্ত করা হয়েছে।

ফুলবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশ্রাফুল ইসলাম বলেন, রাতে টহলে থাকা পুলিশ সদস্যরা অটোরিকশাটি উদ্ধার করেছেন। অটোচালককে খোঁজাখুঁজির পর তাঁর লাশ একটি বাগান থেকে উদ্ধার করা হয়। নিহত জনির গলায় ছোট কাঁচি দিয়ে খুঁচিয়ে ফুটো করা হয়েছে। রক্তমাখা কাঁচিটিও উদ্ধার করা হয়। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে জনির মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের মর্গে। অপরাধীদের শনাক্ত করতে পুলিশের কয়েকটি ইউনিট কাজ করছে। স্বজনদের সঙ্গে আলাপ করে এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।