নিহতের পরিবারের বরাত দিয়ে চেঁচরীরামপুর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আবদুল মান্নান বলেন, বেল্লাল হাওলাদারের সঙ্গে পৈতৃক জমি নিয়ে বড় ভাই নুরু হাওলাদারের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। বিরোধের জেরে আজ ভোর পাঁচটার দিকে নুরু একটি ধারালো অস্ত্র নিয়ে বেল্লালের বাড়িতে যান। এ সময় বেল্লাল ঘুমিয়ে ছিলেন। এই সুযোগে নুরু অস্ত্র দিয়ে বেল্লালের মাথায় এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করেন। এতে ঘটনাস্থলেই বেল্লালের মৃত্যু হয়। তবে এ সময় বেল্লালের পরিবারের লোকজনের চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা ঘটনাস্থল থেকে নুরুকে আটক করেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নুরুকে আটক করে।

কাঠালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মুরাদ আলী বলেন, নিহত বেল্লালের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।