ভুক্তভোগী শিশুটির পরিবারের সদস্যরা জানান, গত শুক্রবার বিকেলে বাড়ির পাশের একটি পরিত্যক্ত ভিটায় টাকার লোভ দেখিয়ে কৌশলে শিশুটিকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেন রতন কুমার সাহা (৫৫)। পরে শিশুটি বাসায় এসে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরদিন বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্যকে জানানো হয়। তিনি অভিযুক্ত ব্যক্তির এক আত্মীয়ের কাছ থেকে কিছু টাকা দিয়ে শিশুটিকে চিকিৎসা করাতে বলেন।

শিশুটির মা প্রথম আলোকে বলেন, মেয়েকে ধর্ষণের বিষয়টি তিনি স্থানীয় ইউপি সদস্যকে জানিয়েছিলেন। তিনি শিশুটির চিকিৎসা করানোর জন্য পাঁচ হাজার টাকা আদায় করে দেন। তখন আশ্বাস দেওয়া হয় চিকিৎসার সব খরচ দেওয়ার পাশাপাশি মেয়ে সুস্থ হলে এ ঘটনার বিচার করা হবে। কিন্তু কোনো বিচার করা হয়নি। বিচারের জন্য মামলা করেছেন বলে জানান সীমা।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে ধামরাই থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ ওয়াহেদ পারভেজ প্রথম আলোকে বলেন, ভুক্তভোগী শিশুটির মা গতকাল মঙ্গলবার রাতে তিনজনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেছেন। আজ বুধবার সকালে ভুক্তভোগী শিশুটির স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান–স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।