নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন আজ রোববার প্রথম আলোকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, এমদাদুল হক নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে হিরো আলমের বিরুদ্ধে থানায় জিডি করেছেন। তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জিডিতে এমদাদুল হক দাবি করেছেন, সাবেক স্ত্রী নুসরাতকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশের জেরে হিরো আলম তাঁকে অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ এবং হুমকি দিয়েছেন।

জিডিতে এমদাদুল হক উল্লেখ করেছেন, গত ২৭ জুলাই ‘দৈনিক আলোর পথ’ নামে একটি অনলাইনে ‘হিরো আলমকে শেষবার সতর্ক করলেন নুসরাত’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এর জেরে ওই দিন বিকেল ৫টা ৩ ও ৫টা ৬ মিনেটে হিরো আলমের মুঠোফোন নম্বর থেকে ফোন করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ এবং প্রতিবেদনটি অনলাইন থেকে সরিয়ে না নিলে ‘সমস্যা’ করবেন বলে হুমকি দেন।

যোগাযোগ করা হলে এমদাদুল হক বলেন, হিরো আলমকে সতর্ক করে তাঁর সাবেক স্ত্রী নুসরাত জাহান নিজের ফেসবুক আইডিতে একটি পোস্ট দেন। সেই তথ্যের ভিত্তিতে হিরো আলমকে একটি নম্বর থেকে দুই দফা ফোন দেওয়া হয়। কিন্তু তিনি ফোন ধরেননি। কিন্তু প্রতিবেদন অনলাইনে ছাড়ার পর তিনি ফোনে হুমকি দেন।

এ বিষয়ে মুঠোফোনে হিরো আলম বলেন, নিজেকে সাংবাদিক দাবি করা এমদাদুল হক নামের ওই ব্যক্তি তাঁর কোনো বক্তব্য না নিয়েই ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে একটা অনলাইনে নিউজ করেন। তিনি এমদাদুলের ফোন নম্বর সংগ্রহ করে যোগাযোগ করে তাঁর বক্তব্য যুক্ত করার জন্য অনুরোধ করেন। না হলে অনলাইন থেকে নিউজটা সরাতে বলেন। কিন্তু তিনি সরাবেন না জানিয়ে ফোন কেটে দেন। পরে অন্যদের প্ররোচনায় তাঁর ক্যারিয়ারের ক্ষতি করতে এমদাদুল মিথ্যা অভিযোগে জিডি করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন