বৈঠক শেষে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন সাংবাদিকদের জানান, বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস তাঁদের সিটি করপোরেশনে এসেছেন। তাঁর সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের দুই দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা হয়েছে। রাজশাহীতে যে আমেরিকান কর্নার রয়েছে, সেটির পরিধি আরও বাড়ানো যায় কি না, সেটার সম্ভাব্যতা তাঁরা যাচাই করছেন। যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ পুলিশের প্রশিক্ষণ কার্যক্রমে সহযোগিতা করছে, তা অবশ্যই প্রশংসনীয়। সব মিলিয়ে অত্যন্ত ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।

রাজশাহী নগরের প্রশংসা করে মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেন, তিনি রাজশাহীর সপুরা সিল্ক, মেট্রোপলিটন পুলিশের অফিস, ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টার, বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর, আমেরিকান কর্নার পরিদর্শন করেছেন। রাজশাহী সত্যিকার অর্থে সুন্দর, সবুজ ও পরিচ্ছন্ন শহর।

নগর ভবনে বৈঠকের শুরুতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাসকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান খায়রুজ্জামান। বৈঠক শেষে মার্কিন রাষ্ট্রদূতের হাতে সম্মাননা স্মারক ও উপহারসামগ্রী তুলে দেন তিনি। মার্কিন রাষ্ট্রদূত নগর ভবনের প্রধান ফটকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান রাজশাহী সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ বি এম শরীফ উদ্দিন। এরপর শিশুশিল্পীদের অংশগ্রহণে নৃত্য আর বর্ণিল আয়োজনে তাঁকে বরণ করে নেওয়া হয়।

দুপুরে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রুয়েট) ‘আমেরিকান সেন্টার পপআপ’ শীর্ষক কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে। রুয়েটের তড়িৎ ও কম্পিউটার কৌশল বিভাগ ও ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন টেকনোলজি বিভাগের সহযোগিতায় এবং যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস, ঢাকা ও আমেরিকান কর্নার, রাজশাহীর আয়োজনে এই কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন