আদালত ও মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণ সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১১ এপ্রিল সন্ধ্যায় ঢাকা-চট্টগ্রাম পুরোনো মহাসড়কের ফেনী সদর উপজেলার পুলিশ লাইনসের সামনের সড়ক হয়ে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় নিয়ে ইসমাইল ফেনী শহরের দিকে যাচ্ছিলেন। এ সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) দুর্লভ চন্দ দাস তাঁর অটোরিকশা তল্লাশি করে ২৫ বোতল ভারতীয় ফেনসিডিল উদ্ধার করেন এবং তাঁকে গ্রেপ্তার করেন।

এ ঘটনায় দুর্লভ চন্দ্র বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ফেনী সদর মডেল থানায় একটি মামলা করেন। তদন্ত শেষে একই বছরের ৩০ এপ্রিল অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। ২০১৫ সালের ৩০ এপ্রিল মামলার চার্জ গঠন করা হয়। মামলায় ৮ জন সাক্ষী সাক্ষ্য প্রদান করেন। আদালতে সরকার পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন ফেনীর জ্যেষ্ঠ সহকারী সরকারি কৌঁসুলি দ্বিজেন্দ্র কুমার বণিক।