আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি মোসাব্বিরুল ইসলাম বলেন, আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করেছেন। এরপর পর্যালোচনা করে একটা আদেশ দেবেন। এখনো মামলা আমলে নেওয়া বা আদেশ দেওয়া সম্পর্কে আদালত কিছু বলেননি।

মামলার আরজিতে বলা হয়েছে, ২০১৫ সালের ১ জানুয়ারি মর্জিনা রহমানের স্বামী আইনুর রহমান ওরফে মুক্তার বিরুদ্ধে বোয়ালিয়া থানায় একটি মামলা করে পুলিশ। ওই মামলায় ২৭ জানুয়ারি আইনুর রহমানকে উপশহর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর তাঁকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়। সেদিনই তাঁকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। কারা কর্তৃপক্ষ গুরুতর আহত আইনুর রহমানকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ সদস্যরা স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করলেও দাফন না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা পাহারায় ছিলেন।

বাদীর আইনজীবী মাইনুল আহসান প্রথম আলোকে বলেন, বাদীর স্বামীর বিরুদ্ধে একটি রাজনৈতিক মামলা হয়েছিল। সেই মামলায় গ্রেপ্তারের পর তাঁকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে বলে তিনি দাবি করছেন। এ জন্য হেফাজতে মৃত্যুর আইনে তিনি (বাদী) আদালতে মামলার আবেদন করেছেন।

ঘটনার সাত বছর পর কেন মামলার আবেদন করা হলো, এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাইনুল আহসান বলেন, বাদী এসে মামলা দিয়েছেন, তিনি আইনজীবী হিসেবে আদালতে জমা দিয়েছেন। এ ছাড়া তথ্য-উপাত্ত খোঁজ করতে দেরি হয়েছে বলে আরজিতে বলা হয়েছে। এখন আদালতের ব্যাপার। তবে এ বিষয়ে আদালত এখনো কোনো আদেশ দেননি।