রহিম হোসেন জানায়, ১৮ জুলাই সে আশ্রয় কেন্দ্র থেকে পালিয়ে কেরানীগঞ্জের বাবুবাজার সেতু পার হয়ে জিনজিরা রসুলপুর মসজিদ ঘাটসংলগ্ন রাস্তার পাশে আশ্রয় নেয়। সেখানে কিছু যুবক তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে তার পরিচয় ও বাড়ি বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার ইউনিয়নে বলে জানতে পারে।

রহিম হোসেনের বাবার নাম জাকির ব্যাপারী ও মা বিবি রহিমা। রহিমের বাবা একজন ফলের ব্যবসায়ী। এমন তথ্য দিয়ে কেরানীগঞ্জের যুবক নাজমুল ইসলাম তাঁর ফেসবুকে পোস্ট দেন। সেই সঙ্গে মুঠোফোনে সান্তাহার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাহিদ সুলতানার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। চেয়ারম্যান রহিমকে সান্তাহারে পাঠাতে বলেন। এরপর রহিমকে সান্তাহারে পাঠানো হয়। রহিম মা–বাবাকে ফিরে পাওয়ার আশায় এখন সান্তাহার এলাকায় খোঁজাখুঁজি করছে।

নাজমুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, ‘আমাদের এলাকায় আমরা একটি ছেলেকে বসে থাকতে দেখি। তাকে দেখে সন্দেহজনক মনে হলে জিজ্ঞাসাবাদে তার পরিচয় ও ঠিকানা জানতে পারি। পরে বগুড়ার সান্তাহার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাহিদ সুলতানা ও স্থানীয় সাংবাদিক নেহাল হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাকে সান্তাহারে পাঠানোর ব্যবস্থা করি।’

সান্তাহার ইউপি চেয়ারম্যান নাহিদ সুলতানা বলেন, ‘কেরানীগঞ্জ থেকে আমাকে এক যুবক ফোন করে বলেছিল, রহিম হোসেন নামের একটি ছেলেকে সেখানে পাওয়া গেছে, যার বাড়ি সান্তাহারে। ১০ বছর আগে ছেলেটি নাকি ঢাকায় মা–বাবার কাছ থেকে হারিয়ে যায়। তাঁরা ছেলেটিকে সান্তাহারে পাঠাতে চাইলে আমি তাঁদের পাঠাতে বলি এবং পুলিশের সহযোগিতা গ্রহণ করি, যাতে ছেলেটি পরিবারের কাছে ফিরে যেতে পারে। বর্তমানে ছেলেটি আমার হেফাজতে আছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন