মামলার সংক্ষিপ্ত এজাহার থেকে জানা গেছে, চলতি বছরের ২৪ মে নিরাময় হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক মিজানুর রহমান এক নারীকে যৌন হয়রানি করেন। চিকিৎসক আসাদুজ্জামান ঘটনাটি জেনেও ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করায় তা বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। বিষয়টি সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক তারেক আজিজের দৃষ্টিগোচর হয়। ২৯ মে তিনি এ ঘটনায় মামলা করতে রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ৯ জুন হাসপাতালের মালিক এবং ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

আজ ওই মামলায় জামিন নিতে আদালতে উপস্থিত হন হাসপাতালের মালিক মিজানুর রহমান মুন্সি ও চিকিৎসক মো. আসাদুজ্জামান। আদালত তাঁদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

আসামিপক্ষের আইনজীবী আনোয়ার হোসেন মৃধা প্রথম আলোকে বলেন, আসামিরা ঘটনার সঙ্গে জড়িত নন দাবি করে আদালতে জামিনের আবেদন করেন। প্রথমে আদালত তাঁদের জামিন মঞ্জুর করেন। কিন্তু বাদী আদালতকে ঘটনার ভিডিও দেখান। ভিডিও দেখে আদালত তাঁদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়েছেন। তাঁরা আগামী দু-তিন দিনের মধ্যে আবারও জামিনের আবেদন করবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন