নারায়ণগঞ্জ আদালত পুলিশের পরিদর্শক মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ২০১৮ সালের ২৩ আগস্ট রূপগঞ্জের ভুলতা এলাকার শিউলির সঙ্গে ওই এলাকার শামীমের বিয়ে হয়। বিয়ের ৭ দিন পর ৩১ আগস্ট রাতে শিউলিকে গলা কেটে হত্যা করেন শামীম। এ ঘটনায় নিহত শিউলি আক্তারের মা আমেনা খাতুন বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় গ্রেপ্তারের পর শামীম আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। তদন্ত কর্মকর্তা ওই বছরে শামীমকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে বলা হয়, পারিবারিক কলহের জেরে শিউলিকে গলা কেটে হত্যা করেন শামীম।

সরকারি কৌঁসুলি মনিরুজ্জামান বুলবুল বলেন, ১১ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালত অভিযুক্ত শামীমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন।

মামলার বাদী আমেনা খাতুন বলেন, ‘আমার মেয়েকে ঘুমের মধ্যে বঁটি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করেন শামীম। আমরা আদালতের ফাঁসি চেয়েছিলাম। আদালত যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিছে। আমরা আসামির ফাঁসি চাই।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন