পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শৈলকুপা উপজেলার উমেদপুর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মান্নান মণ্ডলের সঙ্গে পাশের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য কফিল উদ্দিনের এলাকায় রাজনৈতিক আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলছিল। আজ সকালে ইউনিয়নের বিএলকে বাজারে তেল কিনতে যান মান্নান মণ্ডলের সমর্থক তরিক মণ্ডল। তখন প্রতিপক্ষের লোকজন তাঁকে আটকে মারধর করেন। পরে লক্ষুণদিয়া গ্রামে দুই পক্ষের সমর্থকেরা পাল্টাপাল্টি সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। সংঘর্ষে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র ব্যবহার করা হয়। এতে উভয় পক্ষের অন্তত পাঁচজন আহত হন। হতাহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক সাইদকে মৃত ঘোষণা করেন। অন্য চারজনকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাহিয়া মেহেনাজ বলেন, ধারালো অস্ত্রের আঘাত ও অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

শৈলকুপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, সংঘর্ষের পর ঘটনাস্থল ও আশপাশের এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত আছে।