দণ্ডপ্রাপ্ত আবুল হোসেন পৌরসভার তুলাতলী এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে। তিনি স্থানীয় একটি কলেজের ছাত্র।

ওই বখাটে তরুণ ক্ষিপ্ত হয়ে আজ বাড়িতে ফেরার পথে থানা মসজিদসংলগ্ন সড়কে ওই ছাত্রীর গতিরোধ করেন। এ সময় ওই ছাত্রীকে চড়থাপ্পড় দিয়ে টানাহেঁচড়া করতে থাকেন।

পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ভুক্তভোগী ছাত্রী পৌর শহরের একটি বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে। বেশ কিছুদিন ধরে বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসার পথে ওই ছাত্রীকে বিভিন্নভাবে উত্ত্যক্ত ও যৌন হয়রানি করে আসছিলেন বখাটে আবুল হোসেন। উত্ত্যক্তের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় বিষয়টি ওই ছাত্রী বাড়িতে গিয়ে তার মা-বাবাকে জানায়। পরে তাঁরা প্রতিকার চেয়ে ওই তরুণের পরিবারকে অবহিত করেন। এতে ওই বখাটে তরুণ ক্ষিপ্ত হয়ে আজ বাড়িতে ফেরার পথে থানা মসজিদসংলগ্ন সড়কে ওই ছাত্রীর গতিরোধ করেন। এ সময় ওই ছাত্রীকে চড়থাপ্পড় দিয়ে টানাহেঁচড়া করতে থাকেন। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে ওই বখাটেকে আটক করে থানা-পুলিশে সোপর্দ করেন।

তাৎক্ষণিক খবর পেয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস এম অনীক চৌধুরী ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই ছাত্রীর সঙ্গে কথা বলেন। পরে জিজ্ঞাসাবাদে দোষ স্বীকার করে ক্ষমা চাওয়ায় বখাটে আবুল হোসেনকে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করেন তিনি।

সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. খালেদ হোসেন আজ বিকেলে দণ্ডপ্রাপ্ত যুবককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন