পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে কর্মকর্তা প্রকৌশলী বীরবল মণ্ডল আজ দুপুর ১২টার দিকে প্রথম আলোকে বলেন, খুলনা থেকে ছেড়ে আসা তেলবাহী ট্রেনটি নাটোরে যাচ্ছিল। সকাল সাড়ে ৭টার দিকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ইঞ্জিন ও ইঞ্জিনের পেছনে থাকা তিনটি ওয়াগন লাইনচ্যুত হয়ে পড়ে। একটি ওয়াগন থেকে ফার্নেস তেল পড়ছে। বাকি দুটো দিয়ে অল্প পরিমাণ পড়েছে।

বীরবল মণ্ডল আরও বলেন, একটি লাইন দিয়ে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক আছে। ইতিমধ্যে উদ্ধারকারী রিলিফ ট্রেন ঘটনাস্থলে পৌঁছে কাজ শুরু করেছে। আরেকটি লাইন আগামী দুই ঘণ্টার মধ্যে স্বাভাবিক হবে বলে আশা করা হচ্ছে। পুরো কাজ শেষ হতে আরও সময় লাগবে।

দুর্ঘটনার কারণের বিষয়ে রেলওয়ের এই কর্মকর্তা বলেন, প্রাথমিকভাবে তাঁরা ধারণা করছেন যে লুপ লাইনে দাঁড়ানোর জন্য তেলবাহী ট্রেনটিকে বলা হয়েছিল। সিগন্যালে ব্রেক করা হলেও চালক হয়তো সেটি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি। এতে ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন