এ সময় তাঁর ছেলে মৌমিত হাসানও আহত হয়েছে। তাকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ছেলেকে নিয়ে বগুড়া শহর থেকে মোটরসাইকেলে করে ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে যাচ্ছিলেন খলিলুর রহমান। এ সময় একটি গাড়ির ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়।

আহত হয় মোটরসাইকেলের পেছনে থাকা মৌমিত হাসান। পরে হাইওয়ে পুলিশ তাঁদের উদ্ধার করে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

বগুড়া সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাফুজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, দলীয় কর্মকাণ্ড শেষে ছেলেকে কলেজে ভর্তি করাতে নিয়ে যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় খলিলুর রহমান নিহত হন।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য হাইওয়ে পুলিশের কর্মকর্তাদের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তাঁরা ধরেননি।