ওই দুর্ঘটনার সময়ই দর্শনা থেকে ঢাকাগামী জেআর পরিবহনের একটি বাস ওই বিদ্যুতের খুঁটির ধাক্কা খেয়ে খাদে পড়ে যায়। পরের বাসটির বেশ কয়েকজন সামান্য আহত হলেও তাঁদের কাউকে হাসপাতালে নিতে হয়নি।

default-image

বর্তমানে হাসপাতালে তালুকদার পরিবহনের ১০ জন যাত্রী চিকিৎসাধীন। ওই বাসের আহত যাত্রী রিমা রায় (২৯) বলেন, তিনি তখন ঘুমাচ্ছিলেন। প্রচণ্ড শব্দে তাঁর ঘুম ভেঙে যায়। তিনি বলেন, দুর্ঘটনাটি ছিল মারাত্মক। তবে খুঁটিটি বাসের দুই সিটের মাঝামাঝি দিয়ে যাওয়ায় হতাহতের ঘটনা কম হয়েছে।

জেআর পরিবহনের যাত্রী রাসেল রানা বলেন, তালুকদার পরিবহনের বাসটির ভেতর দিয়ে ঢোকা বিদ্যুতের খুঁটির যে অংশ পেছনের দিকে ঝুলে ছিল, ওই খুঁটির ধাক্কা খেয়ে জেআর পরিবহনের বাসটি সড়কের পাশে খাদে পড়ে যায়। এতে ওই বাসের কয়েকজন যাত্রী সামান্য আহত হন।

প্রত্যক্ষদর্শী গঙ্গাবর্দী এলাকার বাসিন্দা গৃহবধূ রুশমী আক্তার (২৭) বলেন, মহাসড়কের পাশেই তাঁর বাড়ি। তিনি তখন রান্না করছিলেন। দুর্ঘটনার সময় প্রচণ্ড শব্দ হয়। ওই শব্দ শুনে তিনি বের হয়ে এসে দেখতে পান, একটি বাসের মধ্যে বিদ্যুতের খুঁটি ঢুকে গেছে এবং অন্য একটি বাস খাদে পড়ে আছে।

default-image

ফরিদপুরের করিমপুর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কংকর কুমার বিশ্বাস বলেন, দুর্ঘটনায় আহত ১১ জন যাত্রীকে উদ্ধার করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বেলা দেড়টার দিকে আহত যাত্রী নজরুল ইসলাম মারা যান।

খবর পেয়ে ফরিদপুর সদরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লিটন ঢালী দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি পরে হাসপাতালে গিয়েও আহত ব্যক্তিদের খোঁজখবর নেন।

জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, নিহত ব্যক্তির লাশ বাড়িতে পাঠানো ও কাফন-দাফনে সহায়তা হিসেবে উপজেলা পরিষদের ফান্ড থেকে তাৎক্ষণিকভাবে ১০ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আহত ব্যক্তিদের চিকিৎসার জন্য সহযোগিতা করা হচ্ছে।

জেলা বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ওজোপাডিকো) সম্প্রসারণ ও পরিবর্তন প্রকল্পের আওতায় বিদ্যুতের ওই খুঁটিগুলো সড়কের নিচ থেকে ওপরে উঠিয়ে ট্রাকে লোড করার সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে ওই প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী ফজলে রাব্বীকে ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। তবে ফরিদপুর ওজোপাডিকো-২-এর নির্বাহী প্রকৌশলী মোরশেদ আলম বলেন, ভবিষ্যতে বিদ্যুতের খুঁটিগুলো লোড ও আনলোড করার সময় লাল পতাকা টাঙিয়ে অধিক সতর্কতার সঙ্গে কাজ করার জন্য ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন