চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতির আলোকে এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্দেশনায় পুলিশ, র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন, সব গোয়েন্দা সংস্থা ও প্রশাসন একযোগে কাজ করেছে। এ জন্য হোলি আর্টিজানের পর আর তেমন কোনো ঘটনা দেশের কোথাও ঘটেনি। তিনি আরও বলেন, পুলিশের জঙ্গি, সন্ত্রাস মোকাবিলায় প্রশিক্ষণ আছে। পুলিশ তাদের আগে হাঁটে। এ জন্য সব সময়ই পুলিশ সফল হয়েছে।

পুলিশের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর ঢাকার বাইরে প্রথম নিজের জেলা সুনামগঞ্জে গিয়েছেন চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি সংগ্রামী মানুষের সঙ্গে থেকে দেখেছি, কীভাবে জীবনযুদ্ধে জয়ী হতে হয়। সুনামগঞ্জের আলো-বাতাস-নদী, সবকিছুই আমার ভালো লাগে। সুনামগঞ্জে এলে মনে হয়, আমি আমার মায়ের কোলে ফিরে এসেছি।’

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহমদ, সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার এহসান শাহ্, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সাঈদ, মো. সুমন মিয়া প্রমুখ।