মাছ ব্যবসায়ী হানিফ আলীর বাড়ি নাগেশ্বরী উপজেলার বানুরখামার এলাকায়। তিনি বলেন, ৫০ হাজার টাকায় তিনি মাছটি কিনে নাগেশ্বরীতে এনেছেন। আজ শুক্রবার মাছটি কেটে ১ হাজার ৬০০ টাকা কেজিতে বিক্রি করা হচ্ছে। এতে মাছটির দাম আসে প্রায় লাখ টাকা।

নদীগবেষক নাহিদ হাসান বলেন, ব্রহ্মপুত্র নদে বাগাড় মাছ প্রায়ই পাওয়া যায়। বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি বাগাড় মাছের বসবাস ব্রহ্মপুত্র নদে। কিন্তু বর্তমানে ব্রহ্মপুত্র নদে ছোট ছোট বাগাড় মাছ ধরা হচ্ছে। ১০ কেজি ওজনের নিচে বাগাড় মাছ শিশু। প্রজনন মৌসুমে ইলিশ শিকারে যেভাবে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়, গবেষণা করে শিশু বাগাড় মাছ শিকারেও একই রকম নিষেধাজ্ঞা দেওয়া সময়ের দাবি।

কুড়িগ্রাম জেলা মৎস্য কর্মকর্তা কালিপদ রায় জানান, বর্তমানে ব্রহ্মপুত্র নদের বিভিন্ন এলাকায় নিয়মিতই বড় বড় মাছ ধরা পড়ছে। ইলিশ প্রজনন মৌসুমকে কেন্দ্র করে নদীতে জাল ফেলা নিষেধ থাকায় ব্রহ্মপুত্র মাছের মুক্ত বিচরণক্ষেত্র হয়েছিল। ফলে বড় বড় মাছ ব্রহ্মপুত্র নদে এসেছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাগাড় মাছ মাংসাশী। বড়শিতে জেলেরা যে টোপ ব্যবহার করেন, এতে বিভিন্ন ধরনের মাংসের টুকরা বা মুরগির ভুঁড়ি ব্যবহার করেন। এতে বাগাড় মাছ আকৃষ্ট হয়।