মাদারীপুর সদর উপজেলার গৈদী এলাকার মো. মিলন সরদারের (২৭) সঙ্গে ২০১৭ সালের ২৮ এপ্রিল ঘটেকচর এলাকার সুমি আক্তারের (২৪) বিয়ে হয়। বিয়ের এক বছর পর এক ছেলেসন্তানের মা-বাবা হন তাঁরা। এক বছর আগে নিজেদের মধ্যে ঝগড়া হলে তাঁরা বিবাহবিচ্ছেদ করেন। যৌতুকের অভিযোগে মিলন সরদারের বিরুদ্ধে মাদারীপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেন সুমি আক্তার।

আদালত সূত্র জানায়, মামলার বিচারকাজ করার সময় মিলন ও সুমির এক বছরের সন্তানকে দেখে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদ বিষয়টি আপসে মীমাংসা করতে মধ্যস্থতার সিদ্ধান্ত নেন। দুই পরিবারের সদস্যদের ডেকে আলোচনার মাধ্যমে সমঝোতায় পৌঁছাতে বলা হয়। যেহেতু তাঁদের বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছিল, আদালত তাঁদের আবার বিয়ে দেওয়ার আয়োজন করতে বলেন। আদালত প্রাঙ্গণে সেই বিয়ে হয় গতকাল রাতে। পাঁচ লাখ টাকা দেনমোহরে অনুষ্ঠিত এ বিয়ের আয়োজনে অতিথি হিসেবে ছিলেন মাদারীপুরের ডিসি রহিমা খাতুন, এসপি মো. মাসুদ আলম, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদ, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া, জ্যৈষ্ঠ আইনজীবী যতীন সরকারসহ অনেকেই।

বিয়ের অনুষ্ঠানে বাদীপক্ষের আইনজীবী মো. এমদাদুল হক ও বিবাদীপক্ষের আইনজীবী আসিফ শাহারিয়ার উপস্থিত ছিলেন। তাঁরা বলেন, বিচ্ছেদের পর দুটি পরিবারের মধ্যে বিরোধ বাড়তে থাকে। সেখান থেকে তাঁরা যে আবার একত্র হলেন, সেটা দৃষ্টান্ত।