নিহত ব্যক্তিরা হলেন দাগনভূঞা উপজেলার এয়াকুবপুর ইউনিয়নের জাহাঙ্গীর আলমের স্ত্রী জেসমিন আক্তার (৫৫) ও চট্টগ্রামের ভুজপুরের হেয়াকে এলাকার বাসিন্দা মো. সবুজের ছেলে অটোরিকশাচালক আবুল হোসেন (১৮)।

আহত ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছেন দুর্ঘটনায় নিহত জেসমিন আক্তারের দুই মেয়ে জান্নাতুল আফরান (৩০) ও জান্নাতুল ফেরদৌস (১৮)। তাঁরা দাগনভূঞার ইয়াকুবপুরের বাসিন্দা। অপর আহত ব্যক্তিরা হলেন নোয়াখালীর সেনবাগের বড় রাজাপুরের বাসিন্দা দুলাল চন্দ্র দাসের ছেলে রাজীব চন্দ্র দাস (৩০) ও ফেনীর দাগনভূঞার সেবারহট এলাকার জাহাঙ্গীর ফকিরের ছেলে তরিকুল ইসলাম (২২)।

পুলিশ ও এলাকার কয়েকজন বাসিন্দার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দ্রুতগতির ট্রাকটি ফেনীর দিক থেকে নোয়াখালীর দিকে যাচ্ছিল। আর অটোরিকশাটি দাগনভূঞার দিক থেকে ফেনীর দিকে যাচ্ছিল। দুর্ঘটনায় দুজনই ঘটনাস্থলেই নিহত হন। পরে পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন নিহত ও আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে ফেনী জেনারল হাসপাতালে পাঠান।

ফেনী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা মো. আসিফ ইকবাল জানান, আহত ব্যক্তিদের মধ্যে তরিকুলকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। অপর আহত তিনজনের অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় তাঁদের ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে। নিহত ব্যক্তিদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য একই হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ফেনীর মহিপাল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো.আবদুস সামাদ দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত ও চারজন আহত হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি আরও জানান, ট্রাক ও অটোরিকশা পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়। এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন