চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (নাচোল-গোমস্তাপুর-ভোলাহাট) আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও আপেল প্রতীকের প্রার্থী রাজশাহী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরকারকে গোপনে সমর্থন করছেন এই আসনেরই বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য আমিনুল ইসলাম। অন্যদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (সদর) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক যুবলীগ নেতা আপেল প্রতীকের প্রার্থী সামিউল হককে গোপনে সমর্থন দিচ্ছেন ওই আসনের বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হারুনুর রশীদ।

সমাবেশে অভিযোগকারী বক্তাদের একজন নাচোল উপজেলা বিএনপির সদস্যসচিব আবু তাহের প্রথম আলোর কাছে অভিযোগ করেন, গত ২০ জানুয়ারি চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য আমিনুল ইসলামের নাচোলের ঝিকড়া গ্রামে নিজের বাড়িতে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উদ্‌যাপনের আয়োজন করা হয়। একপর্যায়ে ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোহাম্মদ আলী সরকার। ওই সময় আমিনুল ইসলাম তাঁর সমর্থক নেতা–কর্মীদের মোহাম্মদ আলী সরকারের আপেল প্রতীকে ভোট দেওয়ার ও তাঁর পক্ষে কাজ করার আহ্বান জানান।

উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী সংসদ সদস্য প্রার্থী মোহাম্মদ আলী সরকারকে সমর্থন দেওয়ার অভিযোগের বিষয়ে কথা বলার জন্য আমিনুল ইসলামকে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তিনি কল ধরেননি।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক জেলা যুবলীগের সভাপতি আপেল প্রতীকের প্রার্থী সামিউল হক ওরফে লিটনকে গোপনে সমর্থনের অভিযোগ করা হয়েছে হারুনুর রশীদের বিরুদ্ধে। তাঁর ইউনিয়ন পর্যায়ের এক নেতাকে আপেল প্রতীকের পক্ষে কাজ করতে দেখা গেছে।

আপেল প্রতীককে গোপনে সমর্থনের অভিযোগ অস্বীকার করে হারুনুর রশীদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘যাঁরা এমন অভিযোগ তুলছেন, তাঁরা আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে তলেতলে সমর্থন করছে। আমি নির্বাচন নিয়ে নীরবই আছি। তবে আমি চাই, আওয়ামী লীগের প্রার্থী ফেল করুক। আর সামিউলকে কারা ভোটে দাঁড় করিয়েছেন ও সমর্থন জোগাচ্ছেন, এটা অনেকেই জানেন।’