জাহাঙ্গীর আরও বলেন, প্রায় ২০-২৫ মিনিট পরে বাড়ির লোকজন বালতির মধ্যে শিশুটিকে উপুড় হয়ে পড়ে থাকতে দেখে তাকে বালতি থেকে তোলে। কিন্তু শিশুটি আগেই মারা যায়। ফলে পরিবারের সদস্যরা শিশুটিকে আর হাসপাতালে নিয়ে যায়নি। পুলিশকেও কিছু জানানো হয়নি। পারিবারিকভাবে তার দাফনের প্রক্রিয়া চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন