কাউন্সিলে বর্তমান সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবিরকে আবার সভাপতি ও নাজমুল হুদার নাম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ঘোষণার পর উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। মূলত নতুন কমিটি ঘিরেই এ পরিস্থিতি তৈরি হয়।

পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও দলের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দীর্ঘ আট বছর পর রোববার সকালে উপজেলার পাঁচগাও সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মাঠে উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বেলা দুইটার দিকে সম্মেলন শেষ হয়। বিকেলে নতুন কমিটি গঠনের জন্য উপজেলা পরিষদ ভবনে কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। নেতাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবিরকে সভাপতি, নাজমুল হুদাকে সাধারণ সম্পাদক, সহসভাপতি হিসেবে বেলায়েত হোসেন ও মোহাম্মদ উল্যাকে সহসাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়।

নতুন কমিটি ঘোষণার পর কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে পদপ্রত্যাশী অন্য প্রার্থীদের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। একপর্যায়ে উপজেলা চত্বরে পদপ্রাপ্ত ও পদবঞ্চিত কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া শুরু হয়, যা একপর্যায়ে হামলা ও সংঘর্ষে রূপ নেয়। এ সময় বেশ কয়েকটি বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবির) একজন সদস্য এবং ছবি ও ভিডিও চিত্র ধারণ করতে গিয়ে আহত হন এক সংবাদকর্মী। এ সময় ছিনিয়ে নেওয়া হয় ওই সংবাদকর্মীর ক্যামেরা ও মুঠোফোন। এ ছাড়া পাল্টাপাল্টি হামলা, সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কমপক্ষে আরও আটজন আহত হয়েছেন। পরে পুলিশের লাঠিপেটায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

এ বিষয়ে জানার জন্য উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবিরের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি ধরেননি।

চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. গিয়াস উদ্দিন বলেন, কাউন্সিল নিয়ে বিবদমান দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। কাউন্সিলে নতুন নেতৃত্ব ঘোষণা করার পর কিছুটা উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হয়। তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত।

এর আগে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, বিশেষ অতিথি ছিলেন দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ, সাবেক সংসদ সদস্য মাহমুদুর রহমান, আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায়বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ফরিদা খানম, স্থানীয় সংসদ সদস্য এ এইচ এম ইব্রাহিম, ফেনীর সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী, জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক এ এইচ এম খায়রুল আনম চৌধুরী, যুগ্ম আহ্বায়ক শিহাব উদ্দিন, সহিদ উল্যাহ্ খান, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস।