পুলিশের হাতে আটকের আগে আলপনার শাশুড়ি ও শাহ আলমের মা মোছা. নুরুন্নাহার বলেন, তিনি শ্রীপুরের আসপাডা এলাকার আতাব উদ্দীনের বাড়িতে প্রায় আট বছর ধরে ভাড়া থেকে একটি কারখানায় চাকরি করেন। গতকাল তাঁর ছেলে ও ছেলের বউ তাঁর ভাড়া বাসায় আসেন। তিনি সকাল থেকে তাঁর কর্মস্থলে ছিলেন। দুপুর সাড়ে ৩টার দিকে বাসা থেকে এক স্বজন তাঁকে ফোন দিয়ে ঘটনাটি জানান। তাঁর ছেলে ও ছেলের বউয়ের মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ঝগড়া হতো।

শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আসমাউল হোসনা বলেন, মৃত অবস্থায় ওই নারীকে হাসপাতালে আনা হয়েছে। তাঁর শরীরে দুটি স্থানে আঘাতের চিহ্ন আছে।

শ্রীপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাহফুজ ইমতিয়াজ ভূঁইয়া প্রথম আলোকে বলেন, হাসপাতাল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেলে এ বিষয়ে জানা যাবে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আলপনা আক্তারের শাশুড়ি মোছা. নুরুন্নাহারকে পুলিশ আটক করেছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন