এর আগে দুজন সাধারণ সমর্থকের স্বাক্ষর জাল করার অভিযোগে রিটার্নিং কর্মকর্তা স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী সাবেকুন নাহারের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছিলেন। তিনি জেলা প্রশাসকের কাছে আপিল করে প্রার্থিতা ফিরে পাননি। পরে তিনি প্রার্থিতা ফিরে পেতে উচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হন। উচ্চ আদালত তাঁর প্রার্থিতা বহাল রাখেন। শুক্রবার স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেকুন নাহারকে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে তিনি নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন।

সাধারণ ভোটারদের ভাষ্য, এত দিন মেয়র পদে নির্বাচনে প্রচার-প্রচারণা তেমন একটা জমেনি। সাবেকুন নাহার মেয়র পদে প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ার পর মেয়র পদে প্রচার-প্রচারণা জমে উঠেছে। তিনি একমাত্র নারী মেয়র প্রার্থী হওয়ায় ভোটের মাঠে সাড়া পাচ্ছেন।

সাবেকুন নাহার বলেন, ‘প্রচার-প্রচারণার অল্প সময় পেয়েছি। এ সময়ের মধ্যে ভোটারদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। ভোট অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হলে বিপুল ভোটে জয়লাভ করব।’

পাঁচবিবি পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও বগুড়ার জ্যেষ্ঠ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা হুমায়ন কবির প্রথম আলোকে বলেন, স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী সাবেকুন নাহার উচ্চ আদালতের আদেশে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। তিনি প্রতীক পেয়ে নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে বলে তিনি আশাবাদী।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন