স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ফুটবল বিশ্বকাপ শুরুর পর থেকেই গ্রামের ছোট্ট বাজারটিতে দুটি প্রজেক্টরে খেলা দেখানো হচ্ছে। বাজারের মধ্য দিয়ে যে সড়কটি গেছে, তার দক্ষিণ পাশে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সামসুল হকের পরিবারের লোকজন এবং উত্তর পাশে সাইফুল ইসলামের সমর্থকেরা প্রজেক্টর বসিয়ে বড় পর্দায় খেলা দেখাচ্ছেন। গ্রামের সাধারণ মানুষ সেখানে গভীর রাত পর্যন্ত খেলা উপভোগ করছেন। তবে এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে প্রায়ই উত্তেজনা সৃষ্টি হচ্ছিল।

উত্তেজনা এড়াতে স্থানীয় লোকজন দুটির বদলে একটি প্রজেক্টরে খেলা দেখানোর পক্ষে মত দেন। কিন্তু কোনো পক্ষই সে কথা শুনছিল না।

উত্তেজনা এড়াতে স্থানীয় লোকজন দুটির বদলে একটি প্রজেক্টরে খেলা দেখানোর পক্ষে মত দেন। কিন্তু কোনো পক্ষই সে কথা শুনছিল না। ফলে গ্রামের সাধারণ খেলাপ্রেমী মানুষ দুই বড় পর্দার সামনে বিভক্ত হয়ে খেলা দেখে আসছে। গতকাল রাতে সাবেক চেয়ারম্যান সামসুল হক বাজারে এলে একটি প্রজেক্টর রাখার অনুরোধ জানান সাইফুল ইসলাম। এ নিয়ে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে উভয় পক্ষের সমর্থকেরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

সাইফুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, গ্রামের মানুষের কথা ভেবে তাঁর সমর্থকেরা আগে প্রজেক্টরের মাধ্যমে বিশ্বকাপ ফুটবল খেলা দেখানোর উদ্যোগ নেন। তখন সবাই উৎসবমুখর পরিবেশে খেলা উপভোগ করছিলেন। কিন্তু কয়েক দিন পরই সামসুল হকের লোকজন সড়কের অপর পাশে খেলা দেখানোর উদ্যোগ নেন। গতকাল সাবেক চেয়ারম্যানকে বোঝাতে গিয়েই সংঘর্ষ বেধে যায়।

সাবেক চেয়ারম্যান সামসুল হক প্রথম আলোকে বলেন, সাইফুল ইসলাম বিষয়টি নিয়ে অতিমাত্রায় বাড়াবাড়ি করায় এমনটি হয়েছে। বিষয়টি দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ বিষয়ে গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল মতিন বলেন, আহত ব্যক্তিরা রাজশাহীতে চিকিৎসা নিচ্ছেন। লিখিত অভিযোগ পেলে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।