ফেসবুক ঘেঁটে দেখা যায়, শামসুন্নাহার আজ বুধবার ভোর চারটার দিকে সর্বশেষ ফেসবুকে পোস্ট দেন। এক স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন, ‘সব প্রস্থান বিদায় নয়...।’ এর কয়েক ঘণ্টা পরই তাঁর লাশ পাওয়া যায়। পুলিশ জানায়, ছোট বোন ডালিয়া একই বাড়িতে ঘুমিয়ে থাকলেও তিনি কিছু টের পাননি। সকালে ঘুম থেকে জেগে বোনকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান ডালিয়া। খবর পেয়ে পুলিশ সকাল সাতটার দিকে গিয়ে তাঁর লাশ উদ্ধার করে।

বরিশাল জেলা উদীচীর সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য ছিলেন শামসুন্নাহার। স্থানীয় ইউনিভার্সিটি অব গ্লোবাল ভিলেজ নামে বেসরকারি একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ সম্পন্ন করেন। আবৃত্তিতে বিশেষ অবদান রাখায় ২০২২ সালে তিনি জিয়াউল হক স্বর্ণপদক লাভ করেন।

বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানার উপপরিদর্শক আকলিমা বলেন, ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় শামসুন্নাহারের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিজের ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ফাঁস দেওয়ায় গলায় একটি কালো দাগ ছাড়া আর কোনো চিহ্ন নেই। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা হবে।

বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজিমুল করিম বলেন, বুধবার সকালে লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ওই তরুণী আত্মহত্যা করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন