আড়াই বছর ধরে মনোয়ারা এলজিইডির সড়ক পরিষ্কারের কাজ করেন। তিনি বললেন, ১০ থেকে ১৫ দিন ধরে সড়কে লোকজনের চলাচল সীমিত হয়ে পড়েছে। গাড়িও তেমন চলে না। সড়কে বিজিবি টহল দেয়। মানুষ জরুরি কাজে বের হলেও দ্রুত ঘরে ফিরে যান।

মনোয়ারার স্বামী মারা গেছেন বছর তিনেক আগে। বৃদ্ধা মা ও দুই ছেলে মো. আরিফ ও মো. রিফাতকে নিয়ে তাঁর সংসার। কাজ করে দিনে ১৭৫ টাকা পান। এই আয়ে সংসার চলতে চায় না। দুই মাস ধরে এখানকার ব্যবসা-বাণিজ্য মন্দা, দোকানপাট প্রায় বন্ধ। এলাকাতে কাজকর্ম নেই। শ্রমজীবী মানুষের অবস্থা অনেক খারাপ। কেউ কোনো ত্রাণ সহায়তা দেননি তাঁদের।

গোলাগুলি কখন হয়, জানতে চাইলে মনোয়ারা বলেন, ঠিক-ঠিকানা নেই। সকালে হয়, রাতেও হয়। সড়কে দাঁড়িয়ে ওপারের (রাখাইন রাজ্যের) পাহাড় থেকে ছোড়া গোলার আগুন দেখা যায়। রাতের বেলায় গোলা ছোড়া হলে আকাশ আগুনের শিখায় লাল হয়ে ওঠে। ঘরবাড়ি কাঁপতে থাকে। পরিস্থিতি আরও খারাপ হলে কী করবেন, এই নিয়ে দুশ্চিন্তার শেষ নেই তাঁর। বললেন, ঘরে ৬০ বছরের অসুস্থ মা ও ছোট ছোট দুই ছেলে। ঠিকমতো সংসার চলে না; এর মধ্যে কোথাও সরে যেতে হলে কী পরিস্থিতি যে হবে, তিনি ভাবতেও পারছেন না। গোলাগুলি বন্ধ হয়ে তাঁরা যেন দ্রুত স্বাভাবিক জীবনে যেতে পারেন, সেটাই তাঁর একমাত্র চাওয়া এখন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন