টেকনাফ-২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল শেখ খালিদ মোহাম্মদ ইফতেখার আজ শনিবার বিকেলে প্রথম আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। রোববার সকাল ১০টা থেকে এ বৈঠক শুরু হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বৈঠক শেষ করে আগামীকাল বিকেল চারটায় টেকনাফ-২ বিজিবির ব্যাটালিয়ন সদরে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিস্তারিত গণমাধ্যমকর্মীদের জানানো হবে।

তবে টেকনাফের কোন জায়গায় বিজিবি-বিজিপির মধ্যে ব্যাটালিয়ন পর্যায়ে এ পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে, তা বলেননি তিনি। দুই দেশের কতজন করে প্রতিনিধি বৈঠকে অংশগ্রহণ করবেন, তা-ও বিস্তারিত জানাতে পারেননি। বলেন, রোববার সকালে নাফ নদী দিয়ে মিয়ানমারের প্রতিনিধিদলটি টেকনাফে আসবে। এরপর উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে পতাকা বৈঠক শুরু হবে। বৈঠক শেষ করে বিকেল চারটায় টেকনাফ-২ বিজিবির ব্যাটালিয়ন সদরে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিস্তারিত গণমাধ্যমকর্মীদের জানানো হবে।

শেখ খালিদ মোহাম্মদ ইফতেখার বলেন, আড়াই মাস ধরে মিয়ানমার অভ্যন্তরে চলমান গোলাগুলিকে কেন্দ্র করে সীমান্তে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এতে বাংলাদেশ সীমান্তের বান্দরবান ও কক্সবাজার জেলার বাসিন্দারা আতঙ্কে রয়েছেন। সীমান্তের এ পরিস্থিতি নিয়ে শুরু থেকে দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে নানাভাবে যোগাযোগ চলছিল। একাধিকবার বিজিপির কাছে চিঠি পাঠানো হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বৈঠকে বসতে রাজি হয়েছে।