ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী চালকলশ্রমিক মো. রাকিব হাসান বলেন, সকাল থেকে চালকলের বয়লারে সমস্যা দেখা দেয়। বেলা সোয়া ১১টার দিকে ফয়সাল বয়লার মেরামত করছিলেন। এ সময় সেটিতে বিস্ফোরণ ঘটলে তিনি ছিটকে পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান।

জানতে চাইলে জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবদুল খালেক বলেন, নিহত শ্রমিক ফয়সালের পরিবার মামলা করতে আগ্রহী নয়। লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর তা পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র বলছে, ধানকলের বয়লার স্থাপনের পর বিস্ফোরক অধিদপ্তর থেকে নিয়মিত পরীক্ষা–নিরীক্ষার কথা থাকলেও জীবননগরে দীর্ঘদিন ধরে এটা করা হয়নি। ফয়সালের মৃত্যুর ঘটনায় চালকলের বয়লারের ত্রুটি ছিল কি না, তা খতিয়ে দেখা দরকার।

চালকলটির কোনো ত্রুটি ছিল কি না, তা খতিয়ে দেখা হবে জানিয়ে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক শহিদুল হক প্রথম আলোকে বলেন, চুয়াডাঙ্গায় ৯ মাস ধরে আছেন। তাঁর জানামতে, বিস্ফোরক অধিদপ্তরের কোনো পরিদর্শকদল আসেনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন