প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, সিলেটে বিএনপির সমাবেশ সফল করতে উপজেলা বিএনপি গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১২টায় এলআর উচ্চবিদ্যালয় মাঠে এক সভায় বসে। খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে গিয়ে বাধা দেয়। এ নিয়ে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের বাগ্‌বিতণ্ডা শুরু হয়। একপর্যায়ে সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের শেল ও পাঁচটি ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে।

থানা-পুলিশ সূত্র জানায়, এ সময় বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অজয় চন্দ্র দেব, উপপরিদর্শক (এসআই) আতিক, কনস্টেবল বাবুল, বাদশা ও দেলোয়ার আহত হন। তাঁরা বানিয়াচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেন।

বিএনপি সিলেট বিভাগের দায়িত্বরত সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হাসান বলেন, সিলেটে বিএনপির গণসমাবেশ সফল করার জন্য নেতা-কর্মীরা শান্তিপূর্ণভাবে ওই এলাকায় প্রচারপত্র বিলি করেন। এরপর রাতে একটি দোকানে বসে তাঁরা চা পান করছিলেন। এ সময় পুলিশ অন্যায়ভাবে উপজেলা বিএনপির নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা চালায়। পাশাপাশি দলের উপজেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহির খানকে গ্রেপ্তার করে।

বানিয়াচং সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পলাশ রঞ্জন দে বলেন, বিএনপি নেতা-কর্মীদের হামলায় ওসিসহ পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ফাঁকা গুলি ও কাঁদানে গ্যাসের শেল ছুড়েছে। এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে।