নিহত নারীর পরিবার, স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, প্রায় এক বছর ধরে শহরের মধ্য মেড্ডার সবুজ মিয়ার বাড়ির টিনশেডের বাসা ভাড়া নেন আমিন। ওই টিনের বাসার ভাড়া মাসে ১ হাজার ৪০০ টাকা। স্ত্রী, সন্তান ও মাকে নিয়ে ভাড়া বাসায় বসবাস শুরু করেন তিনি। তবে প্রতি মাসেই বাসার ভাড়া নিয়ে বাড়ির মালিক সবুজ মিয়া ও তাঁর স্ত্রী শিরিনা বেগমের সঙ্গে আমিনের ঝামেলা হতো। কয়েক মাস আগে ওয়ার্কশপের কাজ ছেড়ে দেন আমিন। এ কারণে তাঁর গত তিন মাসের বাসাভাড়া বকেয়া হয়েছে। প্রতি মাসেই বাড়ির মালিক বাসাভাড়া নিতে গেলেও আমিন তা পরিশোধ করতে পারেননি।

গতকাল সকালে তিন মাসের বাসাভাড়া ৪ হাজার ২০০ টাকা নিতে আমিনের ঘরে যান বাড়ির মালিকের স্ত্রী শিরিনা। সেখানে তাঁদের মধ্যে তর্ক হয়। আমিন একপর্যায়ে গলায় রশি পেঁচিয়ে শ্বাসরুদ্ধ করে শিরিনাকে হত্যা করেন। লাশ নিজের ঘরের খাটের নিচে রেখে দেন।

এদিকে দিনভর বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেও শিরিনার কোনো সন্ধান পাননি স্বজনেরা। গতকাল সন্ধ্যা ছয়টার দিকে শিরিনার খোঁজে স্বজনেরা আমিনের ঘরে যান। আমিনের ঘরের ঘাটের নিচে শিরিনার লাশ পান স্বজনেরা। স্বজনেরা চিৎকার শুরু করলে স্থানীয় লোকজন সেখানে জড়ো হয়ে ভাড়াটে আমিনকে গণপিটুনি দেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। তখন আমিনকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। শিরিনার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে নিয়ে যায় পুলিশ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ এমরানুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, বাসাভাড়ার বকেয়া টাকা আনতে গিয়ে ভাড়াটের হাতে বাড়ির মালিকের স্ত্রী নিহত হয়েছেন বলে অভিযোগ। এ ঘটনায় এখনো কোনো মামলা হয়নি।