তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা যুবলীগের কমিটিতে পদপ্রত্যাশীরা হলেন কুমিল্লা সরকারি কলেজ ছাত্রসংসদের সাবেক সহসভাপতি (ভিপি) ও অর্থমন্ত্রীর বড় ভাইয়ের ছেলে কামরুল হাসান, একই কলেজের ছাত্রসংসদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক (জিএস) ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান খান, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুস সোবহান খন্দকার, চৌদ্দগ্রাম উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও চৌদ্দগ্রাম উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক শাহজালাল মজুমদার, কুমিল্লা আইন কলেজের সাবেক সাধারণ সম্পাদক (জিএস) রফিকুল ইসলাম, বরুড়া উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক রুহুল কুদ্দুস, একই কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ও বরুড়া পৌরসভার মেয়র বকতার হোসেন, কুমিল্লা জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য সোহেল সামাদ, আদর্শ সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গাজী রিয়াজ মাহমুদ, কুমিল্লা সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এনামুল হক, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

কামরুল হাসান বলেন, ‘১০ বছর ধরে কোনো কমিটি নেই। কমিটি হলে আমি আহ্বায়ক/সভাপতি পদপ্রত্যাশী।’ আতিকুর রহমান খান বলেন, ‘কমিটিতে আমি আহ্বায়ক প্রার্থী।

কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সর্বশেষ কমিটির সভাপতি শাহীনুল বলেন, কমিটি হওয়া দরকার। কমিটি হলে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি হবে। কেন্দ্র সেটি নিয়ে কাজ করছে।

কেন্দ্রীয় যুবলীগের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ক্লিন ইমেজের লোক চায় যুবলীগ।

বাংলাদেশ যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও কুমিল্লা জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা মশিউর রহমান গতকাল শুক্রবার সকালে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা যুবলীগে পদপ্রত্যাশীদের সিভি নেওয়া হয়েছে। এখন এগুলো যাচাই–বাছাই করা হচ্ছে। এরপর কমিটি ঘোষণা করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন