আজ শনিবার দুপুরে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার গড়পাড়া ইউনিয়নে টিসিবির নিত্যপণ্য বিক্রির কার্যক্রম এবং গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্স উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। ইউনিয়নের শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, করোনা ও বন্যার সময় বিএনপি-জামায়াতের নেতা-কর্মীরা মানুষের পাশে দাঁড়াননি। তাঁরা শুধু বড় বড় কথা বলেতে পারেন। এখন একটা দুর্যোগ পুরো পৃথিবীতে চলছে, বাংলাদেশেও এর প্রভাব পড়েছে। বিএনপি–জামায়াত বিভিন্ন জায়গায় সমস্যা সৃষ্টি করে সরকারকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা করছে। তবে জনগণ জানে যে কারা জনগণের প্রকৃত বন্ধু, কারা দেশ স্বাধীন করেছে, কারা দেশের উন্নয়ন করছে। তাই জনগণকে ধোঁকা দেওয়ার সময় নেই। বিএনপি-জামায়াতের চক্রান্তের জালে মানুষ আর কোনো দিন পা দেবে না। দেশের উন্নয়ন চলমান রাখতে জনগণ আগামী নির্বাচনে নৌকায় ভোট দেবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘করোনা মহামারি এবং ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে দ্রব্যমূল্য অসহনীয় পর্যায়ে গিয়ে ঠেকেছে। দ্রব্যমূল্য শুধু আমাদের দেশেই বাড়েনি, সারা বিশ্বে বেড়েছে। এর প্রভাব পড়েছে আমাদের কৃষি, যোগাযোগসহ বিভিন্ন খাতে।’
গড়পাড়া ইউনিয়নে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের গ্রামের বাড়ি। এ ইউনিয়ন পরিষদের নিজস্ব অর্থায়নে ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্স কেনা হয়েছে। আজ এই অ্যাম্বুলেন্সের উদ্বোধন করেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, একটি অ্যাম্বুলেন্স রোগীর জীবন বাঁচাতে অনেক ভূমিকা রাখে। সঠিক সময়ে রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে রোগীর মৃত্যুর ঝুঁকি অনেক কমে যায়। এ ইউনিয়নের নিজস্ব অর্থায়নে গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্স কেনা একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। অ্যাম্বুলন্সেটি গ্রামের সব রাস্তা দিয়ে চলতে পারবে। এ ধরনের অ্যাম্বুলেন্সের উদ্যোগ প্রতিটি ইউনিয়নে নিলে স্বাস্থ্যসেবার মান আরও বাড়বে। এ উদ্যোগ সফল হলে সারা দেশে এ ধরনের প্রকল্প গ্রহণ করা হবে।

অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আবদুল লতিফের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন জেলা  আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সালাম, সিভিল সার্জন মোয়াজ্জেম আলী খান চৌধুরী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) ইমতিয়াজ মাহবুব, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইসরাফিল হোসেন, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জ্যোতিশ্বর পাল, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও গড়পাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আফছার উদ্দিন সরকার প্রমুখ।