পুলিশ ও করোটা উচ্চবিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বেশ কয়েক দিন ধরে আশপাশের মহল্লার কয়েক বখাটে তরুণ ওই বিদ্যালয়ের আশপাশে ঘোরাঘুরি করতেন। নিরাপত্তাকর্মী আবুল কাসেম তাঁদের এভাবে ঘোরাঘুরি করতে নিষেধ করেন। এর জেরে আজ দুপুরে হঠাৎ ১১ তরুণ বিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের দ্বিতীয় তলায় উঠে নিরাপত্তাকর্মী আবুল কাসেমকে হাতুড়ি ও ক্রিকেট খেলার স্টাম্প দিয়ে এলোপাতাড়ি পেটাতে থাকেন। ওই নিরাপত্তাকর্মী চিৎকার দিলেও বিদ্যালয় ছুটি হয়ে যাওয়ায় এবং শিক্ষকেরা নামাজে যাওয়ায় তাঁকে কেউ রক্ষা করতে পারেননি। বখাটেরা তাঁকে পিটিয়ে জখম করে চলে যায়। পরে শিক্ষকেরা তাঁকে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

হাসপাতালে ভর্তি থাকা আবুল কাসেম প্রথম আলোকে বলেন, বিদ্যালয়ের এক ছাত্রীর সঙ্গে ওই বখাটেদের মধ্যে তন্ময় নামের একজনের প্রেমের সম্পর্ক আছে। সেই সুবাদে তিনি ও তাঁর কয়েক সহযোগী প্রায়ই বিদ্যালয়ের আশপাশে ঘোরাঘুরি করতেন। এ ব্যাপারে নিষেধ করায় তাঁরা রেগে যান। আজ হঠাৎ হাতুড়ি ও স্টাম্প নিয়ে হামলা চালান। হাতুড়িপেটায় তাঁর মাথা ফেটে গেছে। মাথায় তিনটি সেলাই দেওয়া হয়েছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আসলাম উদ্দিন বলেন, এ ব্যাপারে সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। পুলিশ হামলাকারীদের দ্রুত শনাক্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে বলে তাঁরা আশাবাদী।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাছিম আহমেদ বলেন, এ ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তিদের শনাক্ত করে দ্রুত আইনানুগ পদক্ষেপ নেওয়া হবে।