ওসি নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, স্কুলছাত্র রবিউল হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। রবিউলের বাবা নওশাদ আলী বাদী হয়ে তিনজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। এ ছাড়া মামলায় পাঁচ থেকে ছয়জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে। পূর্বশত্রুতার জেরে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে শহরের গোদারপাড়া এলাকায় দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে স্কুলছাত্র রবিউল খুন হয়। রবিউল শহরের ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের গোদারপাড়া এলাকার নওশাদ আলীর ছেলে। সে বগুড়ার কারিগরি প্রশিক্ষণকেন্দ্রে এসএসসি ভোকেশনাল কোর্সে নবম শ্রেণিতে পড়ত।

পুলিশ জানায়, গতকাল রাতে গোদারপাড়া এলাকায় রবিউলের ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। তাকে ধারালো চাকু দিয়ে আঘাত করা হয়। তার চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। তাকে উদ্ধার করে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

রবিউলের বাবা নওশাদ আলী আক্ষেপ করে বলেন, ‘আমার ছেলে কখনো কারও সঙ্গে ঝগড়া–বিবাদে জড়ায়নি। বিনা অপরাধে তাকে খুন করা হয়েছে। আমার ছেলের হত্যাকারীদের বিচার চাই।’