কারাগারে যাওয়া আসামিরা হলেন জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি মাইনুল ইসলাম, সদস্য শফি উদ্দিন আহমেদ, পারইল ইউনিয়ন জামায়াতের আমির মোসলেম উদ্দিন, সেক্রেটারি ফিরোজ আল মুজাহিদ, কর্মপরিষদ সদস্য আবুল কাশেম ও রসুলপুর ইউনিয়ন জামায়াতের কর্মপরিষদ সদস্য আসলামুল হক।

আদালত সূত্র জানায়, গত বছরের ৪ ডিসেম্বর নিয়ামতপুর উপজেলার ধানসুরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ককটেল ও দেশি অস্ত্র উদ্ধার করে নিয়ামতপুর থানা-পুলিশ। ওই ঘটনায় জামায়াতে ইসলামীর স্থানীয় ছয় নেতার নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাতনামা আরও ১০ থেকে ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে পুলিশ।

আজ দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে উপস্থিত হয়ে এজাহারভুক্ত ছয় আসামি জামিনের আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত তাঁদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আসামিপক্ষের আইনজীবী আবু সায়েম আদেশের বিষয়টি তথ্য নিশ্চিত করেছেন।