শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. ফরহাদ হোসেন স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন, ২০১০-এর ৩১(১) ধারা অনুযায়ী তিনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নির্ধারিত বেতনভাতা প্রাপ্য হবেন এবং পদসংশ্লিষ্ট অন্যান্য সুবিধা ভোগ করবেন। উপাচার্য হিসেবে তাঁর নিয়োগের মেয়াদ হবে চার বছর। যোগদানের তারিখ থেকে তাঁর নিয়োগ কার্যকর হবে। তবে রাষ্ট্রপতি যেকোনো সময় তাঁর নিয়োগ বাতিল করতে পারবেন।

অধ্যাপক মোহাম্মদ জহিরুল হক সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক মো. সালেহ উদ্দিনের স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন। সালেহ উদ্দিন শাবিপ্রবির দুবারের সাবেক উপাচার্য। এর আগে মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য হিসেবে শাবিপ্রবির সাবেক উপাচার্য মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান দায়িত্ব পালন করেন। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য হিসেবে শাবিপ্রবির সাবেক কোষাধ্যক্ষ ও ভাষাসংগ্রামী মো. আবদুল আজিজও দায়িত্ব পালন করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পাওয়া অধ্যাপক জহিরুল শাবিপ্রবির প্রথম শিক্ষার্থী হিসেবে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিযুক্ত হলেন। তিনি হবিগঞ্জ পৌর শহরের শায়েস্তানগর এলাকায় জন্মগ্রহণ করেন। ২০০৯ সালে শাবিপ্রবির প্রথম শিক্ষার্থী হিসেবে কমনওয়েলথ স্কলারশিপ নিয়ে যুক্তরাজ্যে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে আবার কমনওয়েলথ স্কলারশিপ পেয়ে ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন থেকে ২০১৮ সালে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি বিভিন্ন ধরনের সামাজিক, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত আছেন।

অধ্যাপক মোহাম্মদ জহিরুল হক প্রথম আলোকে বলেন, দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপাচার্যদের মধ্যে তিনিই সর্বকনিষ্ঠ উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পেলেন। এতে অন্যরকম এক ভালো লাগার অনুভূতি কাজ করছে। আগামী সপ্তাহে তিনি যোগদান করবেন বলে আশা প্রকাশ করেন।