গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে ‘মোস্ট ফুটবল (সকার) টো ট্যাপস ইন ওয়ান মিনিট’ ক্যাটাগরিতে প্রেন চ্যং ম্রো আগের রেকর্ডকে চ্যালেঞ্জ করে গত ৩ মে আবেদন করেন। আগে এক মিনিটে সর্বোচ্চ ১৯৭ বার টোকা দেওয়া কুমিল্লার কনক কর্মকার রেকর্ড করেছিলেন। এক মাস পর গিনেস ওয়ার্ল্ড কর্তৃপক্ষ রেকর্ড ভঙ্গের প্রামাণ্য চিত্র উপস্থাপন করার তাগিদ দেয়। অবশ্য এর মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মুন্তাকিমুল ইসলাম নামের একজন এক মিনিটে ২০৭ বার টোকা দিতে সক্ষম হয়েছেন। তাঁকেও ডিঙিয়েছেন প্রেন চ্যং ম্রো।

আজ শনিবার সকালে প্রেন চ্যং ম্রো প্রথম আলোকে বলেন, গিনেস ওয়ার্ল্ড কর্তৃপক্ষের তাগিদপত্র পাওয়ার পর ২৪ এপ্রিল প্রমাণ হিসেবে ফুটবলে এক মিনিটে ২০৮ বার টোকা দেওয়ার ভিডিও চিত্র ধারণ করেন। এরপর প্রয়োজনীয় প্রামাণ্য চিত্র এবং দলিলপত্র পাঠিয়ে দেন। প্রায় ছয় মাস নীরব থাকার পর বুধবার গিনেস ওয়ার্ল্ড কর্তৃপক্ষ তাঁকে ই-মেইলে সর্বোচ্চ টোকা প্রদানের রেকর্ড ভঙ্গকারী হিসেবে স্বীকৃতির বিষয়টি জানিয়েছে।

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, এক মিনিটে সর্বোচ্চবার ফুটবলে পায়ের টোকা দেওয়ার সংখ্যাটি হচ্ছে ২০৮, যেটি অর্জন করেছেন প্রেন চ্যং ম্রো। চলতি বছরের ২৪ এপ্রিল তিনি এটি অর্জন করেন। প্রেন চ্যং ম্রো চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করেন।
ঢাকার বিসিএল ও চট্টগ্রামের প্রিমিয়ার লিগের হয়ে খেলে থাকেন প্রেন ম্রো। গিনেস ওয়ার্ল্ডে স্বীকৃতি পাওয়ায় অত্যন্ত অত্যন্ত খুশি তিনি। তাঁর মতে, পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়িদের মধ্যে এর আগে গিনেস ওয়ার্ল্ডে কেউ নাম লেখাতে পারেননি।