এলাকাবাসী জানান, ওই এলাকার আধিপত্য নিয়ে বাবর আলী মাতুব্বর (৫৮) ও আলম মোল্লার (৪২) মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। ২০২১ সালের ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যপদে নির্বাচন করেন ওই দুজন। নির্বাচনে ১৭ ভোটের ব্যবধানে বাবর আলীকে হারিয়ে ইউপি সদস্য নির্বাচিত হন আলম মোল্লা। নির্বাচনের পর থেকে এই দুই পক্ষের বিরোধ তীব্র আকার ধারণ করে।

সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ২৩ জন আহত হয়েছেন।

নির্বাচনের পর পর ওই দুই পক্ষের মধ্যে একটি সংঘর্ষের ঘটনায় বাবর আলীকে আসামি করে একটি মামলা করা হয়। ওই মামলায় বাবর আলী পলাতক ছিলেন। ঈদে বাবর আলী এলাকায় ফিরে এলে এ খবরটি পুলিশের কাছে পৌছে দেন ইউপি সদস্য আলম মোল্লা। যদিও পুলিশ অভিযানকালে বাবর আলীকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। ওই ঘটনার জের ধরে আজ দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উভয় পক্ষের লোকজন ঢাল, কাতরা, বল্লমসহ প্রভৃতি দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হন। সংঘর্ষ চলাকালে মনসুরাবাদ বাজারে ইউপি সদস্য আলম মোল্লার সমর্থক মাজহারুলের ফলের দোকান এবং শহর আলী মোল্লার বিকাশ এজেন্টের দোকান ভাংচুর করে প্রতিপক্ষ। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ২৩ জন আহত হন।

ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা এম এম মঈনুদ্দিন বলেন, সংঘর্ষে গুরুতর আহত শহীদ মাতুব্বর (৩৮) ও মো. রাসেলকে (৩৫) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ফরিদপুরে স্থানান্তর করা হয়েছে। ৯ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বাকি লোকদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

ভাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেলিম রেজা বলেন, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন