বহিষ্কারের জন্য সুপারিশ করা আট নেতা হলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এস এম ছালেহ, সহসভাপতি ও শিকলবাহা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বড়উঠান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দিদারুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক জাফর ইকবাল, সদস্য ও জুলধা ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হক, সদস্য মহিউদ্দিন ভান্ডারী ও আবদু শুক্কুর। তাঁরা আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী ফারুক চৌধুরীর বিপক্ষে এবং বিদ্রোহী প্রার্থী মোহাম্মদ আলীর পক্ষে কাজ করে দলের শৃঙঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন বলে বলে অভিযোগ আনা হয়েছে।

কর্ণফুলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হায়দার আলী বলেন, দলীয় গঠনতন্ত্রের ৪৭ (ঞ) ধারা অনুযায়ী আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার এবং দলীয় সব কর্মকাণ্ড থেকে বিরত রাখার সুপারিশ করা হয়েছে।