লামিয়া ওই গ্রামের প্রবাসী মো. রাজীব উদ্দিনের মেয়ে। আগুনে পরিবারটির একটি বড় কাঁচা বসতঘর ও একটি রান্নাঘর পুড়ে গেছে। খবর পেয়ে মিরসরাই ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে এক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

আগুন লাগার সঙ্গে সঙ্গে দ্রুত তা ছড়িয়ে পড়ায় ঘরে থাকা শিশুটিকে আর বের করে আনা সম্ভব হয়নি।

ইছাখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল মোস্তফা প্রথম আলোকে বলেন, আগুন লাগার সময় বাড়ির পুরুষেরা মসজিদে আর নারীরা গৃহস্থালির কাজে ব্যস্ত ছিলেন। আগুন লাগার সঙ্গে সঙ্গে দ্রুত তা ছড়িয়ে পড়ায় ঘরে থাকা শিশুটিকে আর বের করে আনা সম্ভব হয়নি। শিশুটির এমন মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

এ বিষয়ে মিরসরাই ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের লিডার হায়াতুন নবী প্রথম আলোকে বলেন, আগুন নেভানোর পর পুড়ে যাওয়া কাঁচা ঘরটির ভিটা থেকে শিশুটির পুড়ে যাওয়া লাশ উদ্ধার করেন তাঁরা। বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে এ অগ্নিকাণ্ডের সূচনা হয়েছে বলে তাঁরা ধারণা করছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন