আজ মঙ্গলবার সকালে নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ (দ্বিতীয়) ও বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-৭-এর বিচারক সাবিনা ইয়াসমিন এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত সোহাগ আলী সোনারগাঁ উপজেলার সাহাপুর এলাকার আলাউদ্দিন মিয়ার ছেলে। তিনি পলাতক।

আসামি জামিনের পর থেকে পলাতক রয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জ আদালত পুলিশের পরিদর্শক মো. আসাদুজ্জামান প্রথম আলোকে জানান, ২০১৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর সোহাগ আলী পূর্বপরিকল্পিতভাবে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের অফিসকক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয়ের সামনে থাকা শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে ভাঙচুর করেন ও দুমড়েমুচড়ে ফেলেন। আশপাশের লোকজন তা দেখে ছুটে গিয়ে তাঁকে আটক করেন এবং উত্তেজিত জনতা তাঁকে মারপিট করেন। পরে ইউএনওর নির্দেশে তাঁকে আটকে রেখে পুলিশে খবর দেওয়া হয়। পরে পুলিশ এসে তাঁকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় উপজেলা পরিষদের কম্পিউটার অপারেটর আশরাফুল ইসলাম বাদী হয়ে সোহাগ আলীর বিরুদ্ধে সোনারগাঁও থানায় ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করেন। ওই মামলায় সাক্ষীদের সাক্ষ্য শেষে আদালত আজ রায় ঘোষণা করেন।

আসাদুজ্জামান জানান, আসামি জামিনের পর থেকে পলাতক।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন